ফুটবল, ক্রিকেট, ভলিবল নিয়ে ডিএনসিসির ‘মেয়র কাপ’

প্রকাশিতঃ 7:46 pm | October 11, 2021

নিজস্ব সংবাদদাতা, কালের আলো:

মুজিব শতবর্ষ ও স্বাধীনতার রজতজয়ন্তী উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অনুপ্রেরণায় প্রথমবারের মতো আয়োজিত হতে যাচ্ছে ডিএনসিসি (ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন) মেয়র কাপ।

‘খেলাধুলায় ব্যস্ত থাকি, মাদককে দূরে রাখি’-এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে শুরু হতে যাচ্ছে সাইফ পাওয়ারটেক ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন মেয়র কাপ।

সোমবার (১১ অক্টোবর) রাজধানীর স্থানীয় একটি হোটেলে মেয়র কাপের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন ঘোষণা করেন উত্তর সিটি কর্পোরেশনরর মেয়র আতিকুল ইসলাম।

ফুটবল-ক্রিকেট-ভলিবল এই তিনটি ডিসিপ্লিনে অনুষ্ঠিত হবে এই মেয়র কাপ। ১৫ নভেম্বর থেকে শুরু হবে মাঠ ও কোর্টের খেলা। উত্তর সিটি করপোরেশনের ৫৪টি ওয়ার্ড ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলরদের দল অংশ নেবে এই আসরে।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের যে কোনো নাগরিক নিজ নিজ ওয়ার্ডের দলের হয়ে অংশ নিতে পারবেন। ৫৪ জন কাউন্সিলর এবং ১৮ নারী জন কাউন্সিলরের তত্ত্বাবধানে গঠিত হবে তিনটি ইভেন্টের দলগুলো।

জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক খালেদ মাসুদ পাইলট ক্রিকেট ইভেন্টের টেকনিক্যাল ডিরেক্টর হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন। সাবেক তারকা ফুটবলার শেখ মোহাম্মদ আসলাম ফুটবলে ও বাংলাদেশ ভলিবল ফেডারেশনের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ফজলে রাব্বি বাবুল ভলিবল ইভেন্টে টেকনিক্যাল ডিরেক্টর হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন।

এ ছাড়াও মেয়র কাপের প্রচারণায় অংশ নেবেন বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা, আকরাম খান, ওয়ানডে অধিনায়ক তামিম ইকবাল, জাতীয় ফুটবল দলের অধিনায়ক জামাল ভূঁইয়া, ভলিবল খেলোয়াড় হরষিত বিশ্বাস, চিত্রনায়ক ফেরদৌস ও চিত্রনায়িকা পূর্ণিমা।

আজ মেয়র কাপ নিয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন আসরের টাইটেল স্পন্সর প্রতিষ্ঠান সাইফ পাওয়ারটেক লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক তরফদার মোহাম্মদ রুহুল আমিন, রানার গ্রুপের চেয়ারম্যান হাফিজুর রহমান খান, ইউনিক হোটেল অ্যান্ড রিসোর্টসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ নূর আলী।

অনুষ্ঠানে মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘আমরা সবাই চাই একটি সুন্দর শহর। কিন্তু আমাদের ছেলেমেয়েরা তাদের রুমে গিয়ে ফোন-ল্যাপটপে পড়ে থাকে। বাবা-মাও নিজেদের মতো ব্যস্ত থাকে। এটা ছেলেমেয়েদের দোষ নয়। আমরা তাদের মাঠে যাওয়ার ব্যবস্থা করে দিতে পারিনি, এটা আমাদের ব্যর্থতা। আমরা সব মাঠ দখল করে দালান বানাচ্ছি। এতে আমাদের ছেলেমেয়েরা খেলার মাঠ পাচ্ছে না। লেখাপড়ার পাশাপাশি খেলাধুলা দরকার। তাই আমাদের এই চেষ্টা। আমরা সবাই মিলে চেষ্টা করেছি খেলাধুলার একটা ব্যবস্থা করার। কারণ খেলাধুলার কোনো বিকল্প নেই। আগামীতে যেন আরো বড় আকারে করা যায় সেই চেষ্টা করব। আপনারা সবাই মাঠে আসবেন। অংশগ্রহণ করবেন।’

কালের আলো/এসআরবি/এমএম

Print Friendly, PDF & Email