ময়মনসিংহে চাঞ্চল্যকর আলম হত্যার ৭ মাস পর মরদেহের অংশবিশেষ উদ্ধার

প্রকাশিতঃ 4:58 pm | June 29, 2018

নিজস্ব প্রতিবেদক, কালের আলো:

ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়ায় চাঞ্চল্যকর আলম (২৬) হত্যাকান্ডের প্রায় ৭ মাস পর মরদেহের অংশবিশেষ উদ্ধার করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। প্রায় ১৮ ঘন্টা টানা অভিযান শেষে শুক্রবার (২৯ জুন) দুপুর ২ টার দিকে অভিযান সমাপ্ত ঘোষণা করা হয়।

এই অভিযানের নেতৃত্ব দেওয়া পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) ময়মনসিংহের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবু বক্কর ছিদ্দিক এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) পরিদর্শক (ইন্সপেক্টর) সৈয়দ রবিউল হোসেন জানান, গত বছরের ৬ নভেম্বর ভাগবাটোয়ারা নিয়ে দ্বন্দ্বের জের ধরে রিকশা চালক আলমকে (২৬) গাজীপুরের মাওনা থেকে খবর দিয়ে এনে ফুলবাড়িয়ার বাবুগঞ্জ বাজারের বড়বিলা নদীর গোদারাঘাটে খুন করে মরদেহ কচুরিপানার নিচে ডুবিয়ে রাখেন সাদ্দাম, জুলহাস ও রুহুল আমিনসহ কয়েকজন।

পরে আলমের মা বাদী হয়ে আদালতে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। আদালত চাঞ্চল্যকর এ মামলাটি তদন্ত করতে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) নির্দেশ দেয়। পরে পুলিশের হাতে গ্রেফতার হয়ে এই হত্যা মামলার অন্যতম প্রধান আসামি সাদ্দাম হোসেন স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করে।

পরে সাদ্দামের দেয়া তথ্য মোতাবেক বৃহস্পতিবার (২৮ জুন) সন্ধ্যা ৭ টা থেকে স্থানীয় বড়বিলা নদীর গোদারাঘাট এলাকায় অভিযান চালায় পুলিশ। টানা ১৮ ঘন্টার অভিযানে গুদারাঘাটের কচুরিপানার নিচ থেকে নিহত আলমের মাথা, হাড়সহ দেশের ৪২ টি অংশ উদ্ধার করা হয়।

পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) পরিদর্শক (ইন্সপেক্টর) সৈয়দ রবিউল হোসেন আরো জানান, নিহত আলম, হত্যাকারী সাদ্দামসহ কয়েকজন মোটর সাইকেল ও অটো রিকশা চোর চক্রের সদস্য ছিল। নিজেদের মধ্যে ভাগবাটোয়ারা নিয়ে দ্বন্দ্বের জের ধরেই সাদ্দাম তাকে হত্যা করে।

কালের আলো/ওএইচ

Print Friendly, PDF & Email