কীভাবে লিবিয়ায় অবৈধভাবে শ্রমিক পাচার, র‍্যাবকে জানালো সেই কামাল

প্রকাশিতঃ 5:08 pm | June 01, 2020

নিজস্ব প্রতিবেদক, কালের আলো :

লিবিয়ায় ২৬ বাংলাদেশিকে হত্যার ঘটনায় পাচার চক্রের মূল গডফাদার কামাল হোসেন ওরফে হাজী কামালকে (৫৫) গ্রেফতার করেছে র‌্যাব।

এ সময় তার কাছ থেকে একাধিক পাসপোর্ট জব্দ করা হয়েছে। সোমবার (১ জুন) র‌্যাব-৩’র একটি দায়িত্বশীল সূত্র কালের আলোকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

এছাড়া পাচারকারী এই চক্র সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য উদঘাটনের কথা জানিয়েছে র‌্যাব-৩।

র‍্যাব জানায়, সোমবার (১ জুন) ভোর রাতে রাজধানীর বাড্ডা এলাকা থেকে মানব পাচার চক্রের এই মূল গডফাদারকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারকৃত কামাল মাদারীপুর, শরীয়তপুর ও বরিশালসহ বিভিন্ন এলাকার শ্রমিকদের অবৈধভাবে লিবিয়ায় পাঠাতো।

র‍্যাবের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সে স্বীকার করেছে, নিজের অনুসারীদের নিয়ে দুই শতাধিক লোক লিবিয়ায় অবৈধভাবে পাচার করেছে কামাল হোসেন ওরফে হাজী কামাল।

সম্প্রতি নিহত এবং আহত ব্যক্তিদের মধ্যে বেশ কয়েকজনকে সে লিবিয়ায় পাঠিয়েছে। তার বাড়িতে শতাধিক পাসপোর্ট অন্যান্য দলিলাদি পাওয়া গেছে।

জিজ্ঞাসাবাদে হাজী কামাল আরও জানিয়েছে, ভারত অথবা শ্রীলংকা, দুবাই এবং মিশর হয়ে সে অবৈধভাবে লিবিয়ায় মানব পাচার করতো।

সহজ সরল শ্রমিকদের মোটা অঙ্কের বেতনের লোভ দেখিয়ে লিবিয়ায় পাঠাতো। এরপর তার চক্রের দালালরা শ্রমিকদের কাছ থেকে মুক্তিপণ আদায় করে।

র‍্যাব সূত্র আরও জানায়, কামাল চক্রের দালাল দুবাই ও ভারতেও রয়েছে। এই চক্রের প্রায় সকল সদস্য মোবাইল বন্ধ করে আত্মগোপনে রয়েছে। এ চক্রের সদস্যদের গ্রেফতারে র‍্যাবের অভিযান চলছে।

প্রসঙ্গত, গত বৃহস্পতিবার (২৮ মে) রাত নয়টার দিকে লিবিয়ার মিজদা শহরে ২৬ বাংলাদেশিসহ মোট ৩০ জনকে গুলি করে হত্যা করা হয়। হত্যার শিকার বাকিরা আফ্রিকান।

পরে লিবিয়ায় বাংলাদেশি দূতাবাসের পক্ষ থেকে সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, লিবিয়ার দক্ষিণাঞ্চলীয় শহর মিজদাহ-তে কমপক্ষে ২৬ জন বাংলাদেশিকে লিবিয়ান মিলিশিয়া গুলি করে হত্যার তথ্য পাওয়া গেছে। এরমধ্যে প্রাণে বেঁচে যাওয়া এক বাংলাদেশির সঙ্গে টেলিফোনে যোগাযোগে সক্ষম হয় দূতাবাস।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, তিনি কোনো প্রকারে প্রাণে বেঁচে বর্তমানে একজন হৃদয়বান লিবিয়ানের আশ্রয়ে আত্মগোপন করে আছেন।

কালের আলো/এনএল/এএম

Print Friendly, PDF & Email