শিক্ষক ও ছাত্র প্রতিনিধিদের সঙ্গে বশেফমুবিপ্রবির উপাচার্যের ভার্চুয়াল মিটিং

প্রকাশিতঃ 9:34 pm | May 17, 2020

বশেফমুবিপ্রবি সংবাদদাতা, কালের আলোঃ

বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বশেফমুবিপ্রবি) উপাচার্য অধ্যাপক ড. সৈয়দ সামসুদ্দিন আহমেদের সঙ্গে বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষকগণ ও ছাত্রপ্রতিনিধিদের এক ভার্চুয়াল মিটিং অনুষ্ঠিত হয়েছে।

আজ সোমবার (১৭ মে ২০২০) সকালে ভার্চুয়াল মিটিং প্ল্যাটফর্ম ‘জুমে’র মাধ্যমে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভার শুরুতেই উপাচার্য অধ্যাপক ড. সৈয়দ সামসুদ্দিন আহমেদ কোভিড-১৯ মহামারি প্রতিরোধে সবাইকে সচেতন থাকার পাশাপাশি সরকার নির্দেশিত স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান জানান। এছাড়া শিক্ষার্থীদের খোঁজখবর নেন তিনি।

সভায়, নভেল করোনাভাইরাস (COVID-19 Pandemic) জনিত উদ্ভূত পরিস্থিতিতে অনলাইনে শিক্ষার্থীদের ক্লাসে নেওয়ার বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হয়।

একই সঙ্গে করোনা পরিস্থিতিতে শিক্ষার্থীদের হতাশ না হয়ে লেখাপড়ার সঙ্গে যুক্ত থাকার আহ্বান জানান উপাচার্য।

উপাচার্য অধ্যাপক ড. সৈয়দ সামসুদ্দিন আহমেদ বলেন, কোভিড-১৯ মহামারির কারণে অনাকাঙ্ক্ষিত ও অনির্ধারিত এই ছুটির কারণে শিক্ষার্থীরা যাতে ক্ষতিগ্রস্ত না হয় সেজন্য অনলাইনে ক্লাস নেয়া হচ্ছে। এসব ক্লাস যাতে শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণমূলক ও ফলদায়ক হয় সেদিকেও নজর দিচ্ছি আমরা।

এছাড়া ছুটির এই সময়ে শিক্ষার্থীরা যাতে বিচ্ছিন্ন ও হতাশাগ্রস্থ না হয়ে পড়ে সেজন্য সম্ভাব্য সকল উপায়ে শিক্ষার্থীদের শিক্ষা কার্যক্রমের সাথে সম্পৃক্ত রাখা এবং তাদের প্রয়োজনীয় মানবিক ও অন্যান্য সহযোগিতা অব্যাহত রাখার জন্য বিভাগের শিক্ষকগণের প্রতি বিশেষভাবে আহ্বান জানান তিনি।

এদিকে সভায় উপাচার্য মহোদয়কে ছাত্র প্রতিনিধিরা অনলাইন ক্লাসে তাদের অভিজ্ঞতা তুলে ধরেন। এক্ষেত্রে তাদের কোনো সমস্যার মুখোমুখি হতে হয় কি না তাও জানতে চান উপাচার্য। এসব সমস্যা সমাধানের পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের বাসায় থেকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার নির্দেশ দেন তিনি।

নানা সীমাবদ্ধতা ও প্রতিবন্ধকতা থাকা স্বত্তেও বশেফমুবিপ্রবির অনলাইন ক্লাসে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতির শতকরা হার ৬০-৭০ শতাংশ। ছয়টি বিভাগের চেয়ারম্যানগণ জানান, ঈদের আগে অনলাইনে শতভাগ ক্লাস সম্পন্ন করা সম্ভব হবে।

সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে করোনাকালে অনলাইনে ক্লাস পরিচালনার কথা শুনে এ উদ্যোগের ভূয়সী প্রশংসা করেন।

কালের আলো/বিএএ/এমএইচএ

Print Friendly, PDF & Email