‘নো ড্রাগস’ ওয়ার্ড হিসেবে ডিএনসিসির ৩৩ নম্বর ওয়ার্ডকে গড়তে চান আসিফ

প্রকাশিতঃ 8:09 pm | January 14, 2020

নিজস্ব প্রতিবেদক, কালের আলো :

মাদক বাণিজ্যের রাশ টেনে ধরতে সরকারের আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারি বাহিনীর উদ্যোগের খামতি নেই। তবে মাদক নির্মূলে জনসম্পৃক্ততাকেই সর্বোচ্চ বেশি গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে । দলমত নির্বিশেষে সবাইকে মাদক বিরোধী আন্দোলনে সম্পৃক্ত করে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) ৩৩ নম্বর ওয়ার্ডকে ‘নো ড্রাগস’ ওয়ার্ড হিসেবে গড়তে চান সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আসিফ আহমেদ।

তিনি বলেছেন, ‘আমি নির্বাচিত হলে ডিএনসিসির ৩৩ নম্বর ওয়ার্ড হবে মাদকমুক্ত। মাদকের ভয়াল থাবা থেকে তরুণ প্রজন্মকে রক্ষায় কার্যকর নানা উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে। মাদক কারবারি ও এই বাণিজ্যের সঙ্গে সম্পৃক্তদের বিরুদ্ধে সবাই পরিচয় গোপন করেই অভিযোগ দিতে পারবেন। সেই অভিযোগের ভিত্তিতে মাদক নির্মূলে সকলে মিলে কাজ করবো।’

মঙ্গলবার (১৪ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় কালের আলো’র সঙ্গে আলাপকালে এমন কথা বলেন সম্ভ্রান্ত পরিবারের এই সন্তান। আগামী ৩০ জানুয়ারির ভোটে কাউন্সিলর পদে দলীয় মনোনয়ন দেওয়ায় তিনি বঙ্গবন্ধু কন্যা, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

মাদকের মতোই ‘কিশোর গ্যাং’ কালচারকেও বড় সমস্যা হিসেবে সনাক্ত করেছেন কাউন্সিলর প্রার্থী আসিফ। তিনি বলেন, ‘স্কুল-কলেজের গন্ডি পেরোনোর আগেই কিশোরদের একটি অংশ বেপরোয়া আচরণ করছে। এই গ্যাং কালচারের প্রভাবে সমাজে খুন-খারাবি বাড়ছে।’

আওয়ামী লীগের তৃণমূলের রাজনীতির সিঁড়ি বেয়ে রাজনীতির মঞ্চে অভিষিক্ত আসিফ আহমেদ বলেন, ‘মাদক নির্মূলের মতোই কিশোর গ্যাং দমনের দায়িত্ব শুধুমাত্র আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর একার নয়।

এই সমস্যা সবার। তাই সমাধানের দায়িত্বও সবাইকে নিতে হবে। এই ব্যাপারে আমার ৩৩ নম্বর ওয়ার্ডের সব শ্রেণি-পেশার মানুষকে ঐক্যবদ্ধ করে তা মোকাবিলায় একযোগে কাজ করবো।’

তিনি বলেন, ‘কিশোর গ্যাং’ দমনে পরিবারকেই সচেতন হতে হবে। পরিবারের পিতা-মাতাকেই এগিয়ে আসতে হবে। অভিভাবকদের তীক্ষ্ম দৃষ্টিই বিপথগামিতা থেকে তাদের সন্তানদের রক্ষা করতে পারে।

সন্তান কী করে, কার সঙ্গে মেশে, কোথায় সময় কাটায়- এসব বিষয় পর্যাপ্ত মনিটরিং করতে পারলেই গ্যাংয়ের মতো বাজে কালচারে সন্তানের জড়িয়ে পড়া রোধ করা সম্ভব।

আমি নির্বাচিত হলে এই বিষয়টিতেও সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে কাজ করবো। আমার প্রাণের ৩৩ নম্বর ওয়ার্ড হবে ‘কিশোর গ্যাং’ কালচারমুক্ত একটি ওয়ার্ড’ দৃঢ়তার সঙ্গেই উচ্চারণ আসিফের।

কাউন্সিলর প্রার্থী আসিফ আহমেদ মঙ্গলবার (১৪ জানুয়ারি) দিনমান ৩৩ নং ওয়ার্ডের ঢাকা উদ্যান, নবীনগর হাউজিং, চাঁদ উদ্যানসহ বিভিন্ন এলাকায় জনসংযোগ করেন। তাঁর জনসংযোগে ওয়ার্ডবাসীর স্বত:স্ফূর্ততা পরিলক্ষিত হয়।

জনসংযোগের ফাঁকে ফাঁকে কালের আলো’র সঙ্গে আসিফ কথা বলছিলেন। তাঁর চোখে-মুখে যেন টিকড়ে পড়ছিল ৩৩ নম্বর ওয়ার্ডকে নিয়ে তাঁর নানা স্বপ্ন। এ স্বপ্ন যেন অমিত সম্ভাবনার কথাই বলছে।

সরকারি জমিতে শিশুদের জন্য খেলার মাঠ, বর্ষায় দ্রুত বৃষ্টির পানি অপসারণের জন্য নর্দমাসহ পরিকল্পিত ও প্রশস্ত রাস্তা নির্মাণের পরিকল্পনা, পাঠাগার স্থাপন ও পর্যাপ্ত পানির পাম্প স্থাপনের প্রতিশ্রুতিও দিয়েছেন তিনি।

নির্বাচিত ওয়ার্ড কাউন্সিলরকে জনতার দূয়ারে রাখার অঙ্গীকারও করেছেন আসিফ। তিনি বলেন, ‘ওয়ার্ড কাউন্সিলরদের নামের পাশে একটি বদনাম রয়েছে। নির্বাচিত হলেই কাউন্সিলরকে পাওয়া যায় না। আমি এই বদনাম গুচাতে চাই। অতীতেও ওয়ার্ডবাসীর পাশে ছিলাম, সামনের দিনগুলোতেও থাকবো।’

আসিফ বলেন, ‘আমার ওয়ার্ডে ৫ সদস্যের একটি কমিটি থাকবে। আমার পাশাপাশি সেই কমিটির সদস্যরা ওয়ার্ডবাসীর সমস্যা সনাক্ত করবেন। ওয়ার্ডবাসী নিজেদের চাওয়া-পাওয়ার কথা আমার পাশাপাশি তাদের জানাতে পারবেন। এর ফলে কোন কাজই আটকে থাকবে না। সঠিক সময়ে সব সমস্যার সমাধান হবে।’

কালের আলো/সিএইচ/আরআর

Print Friendly, PDF & Email