ঈশ্বরগঞ্জে দুই পরিবারের সংঘর্ষে প্রাণ গেলো ৩ জনের

প্রকাশিতঃ 1:14 pm | August 14, 2019

নিজস্ব প্রতিবেদক, কালের আলোঃ

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে দুই পরিবারের সংঘর্ষে তিনজন নিহত হয়েছেন।

নিহতরা হলেন- ওই গ্রামের আবুল হাসেম (৫৫), তার ছেলে জহিরুল ইসলাম (২৫) ও একই গ্রামের আব্দুর রাশেদের ছেলে আজিবুল ইসলাম (২৮)।

বুধবার(১৪ আগস্ট) সকাল সাড়ে ৮টার দিকে উপজেলার রড়হিত ইউনিয়নের কাঁঠালডাঙ্গি গ্রামে এই ঘটনা ঘটে।

পুলিশ জানায়, নিহত আবুল হাশেম ও আব্দুর রশিদ দুই ভাই। ৪ মাস আগে বাড়ির পাশের মসজিদের ছাদে উঠে দুষ্টামি করায় আব্দুর রাশেদের নাতি মিজানকে চড়-থাপ্পর দেন আবুল হাসেম। সে সময় এ নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে বিরোধ দেখা দেয়। এ বিষয়ে থানায় মামলাও দায়ের করা হয়। পরে ঈদুল আজহার ছুটিতে তাদের বড় ভাই হায়দার মাস্টারের ছেলে হারুন মিয়া বিষয়টি মিমাংশার উদ্যোগ নেন।

এ উপলক্ষ্যে বুধবার সকালে দু’পক্ষকে নিয়ে সালিশে বসেন তিনি। এ সময় আবুল হাসেমের পক্ষ মিমাংশায় রাজি হলেও আবুদর রাশেদের পরিবার তা মানেনি। এক পর্যায়ে দেশিয় অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে দু’পক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। সংঘর্ষে ধারালো অস্ত্রের আঘাতে ঘটনাস্থলেই আবুল হাসেমের মৃত্যু হয়। পরে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসাপাতলে নেওয়া হলে জহিরুল ও আজিবুল মারা যান।

সংঘর্ষে আরও ৫ জন আহত হয়েছেন। তাদের মধ্যে দু’জনের অবস্থা গুরুতর।

এ হত্যাকান্ডের ঘটনার পরপরই পুলিশের ময়মনসিংহ রেঞ্জের ডিআইজি নিবাস চন্দ্র মাঝি ও ময়মনসিংহ জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) শাহ আবিদ হোসেনসহ পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

পুলিশ জানায়, পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে রক্তমাখা রামদা ও ৭টি বল্লমসহ ধারালো অস্ত্র উদ্ধার করেছে।

পুলিশের ময়মনসিংহ রেঞ্জের ডিআইজি নিবাস চন্দ্র মাঝি জানান, দুই চাচাতো ভাইয়ের মধ্যে বিরোধকে ঘিরে এ হত্যাকান্ড সংঘটিত হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে একটি বড় রকমের হাসু উদ্ধার করা হয়েছে। আমি নিজে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে স্থানীয়দের তথ্য দিয়ে পুলিশকে সার্বিক সহযোগিতা করার অনুরোধ জানিয়েছি।

তিনি জানান, এ হত্যাকান্ডের সঙ্গে জড়িতদের কোন ছাড় নেই। তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

কালের আলো/এনএল/এমআর

Print Friendly, PDF & Email