সেনাপ্রধানের প্রস্তাবে সাড়া, বাংলাদেশ থেকে নেওয়া হচ্ছে ফোর্স কমান্ডার

প্রকাশিতঃ 4:03 pm | July 10, 2019

নিজস্ব প্রতিবেদক, কালের আলো :

শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে বিশ্বের নানা প্রান্তে গৌরবময় ইতিহাস রচনা করেছে বাংলাদেশের শান্তিরক্ষীরা। শান্তিরক্ষায় বিশ্বব্যাপী ব্লু হেলমেটধারীদের কাছে বাংলাদেশ এখন অনুপ্রেরণার নাম। বিশ্বের বিভিন্ন যুদ্ধবিধ্বস্ত অঞ্চলে শান্তি প্রতিষ্ঠা ও মানবাধিকার রক্ষার ক্ষেত্রে লাল-সবুজের বাংলাদেশ জাতিসংঘের বিশ্বস্ত ও পরীক্ষিত বন্ধু হিসেবেও অনেক আগেই স্বীকৃতি পেয়েছে।

আরও পড়ুন: শান্তি প্রক্রিয়ায় অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপনের জন্য সেনাপ্রধানের প্রশংসা

জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে শৃঙ্খলা রক্ষা কার্যক্রমে বাংলাদেশ সক্রিয় অংশগ্রহণ বিশ্বজুড়েই কুড়িয়েছে সুনাম। ১৯৮৮ সালে ইরান-ইরাক যুদ্ধের মধ্যে দিয়ে শান্তিরক্ষা মিশনে জাতিসংঘের আহবানে সাড়া দিয়ে বাংলাদেশ প্রথম অংশগ্রহণ করে। এরই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশি শান্তিরক্ষীদের সাফল্যে যুক্ত হতে যাচ্ছে নতুন পালক।

বাংলাদেশ সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদের প্রস্তাবে সাড়া দিয়ে শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশ থেকে ফোর্স কমান্ডার নেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন জাতিসংঘ মহাসচিবের সামরিক উপদেষ্টা লেফটেন্যান্ট জেনারেল কার্লোস উমবার্তো লতে।

আরও পড়ুন: পাচ্ছে ২৫০ কোটি টাকা, চ্যালেঞ্জিং পরিবেশে কাজ করতে প্রস্তুত বাংলাদেশ

সোমবার (০৮ জুলাই) যুক্তরাষ্ট্রে সফরত বাংলাদেশ সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদের সঙ্গে জাতিসংঘ সদর দপ্তরে সাক্ষাতকালে তিনি এ আশ্বাস দেন। তিনি বলেন, বাংলাদেশ থেকে অচিরেই ফোর্স কমান্ডার নেওয়া হবে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, সামরিক উপদেষ্টা বিশ্বশান্তিরক্ষায় বাংলাদেশ সরকারের স্বত:স্ফুর্ত সহায়তার জন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। এ সাক্ষাতকালে বাংলাদেশী শান্তিরক্ষীদের আত্মত্যাগ ও বিশ্বের বিভিন্ন দেশে প্রতিকূল পরিবেশে শান্তিরক্ষায় অবদানের জন্য তাদের ভূয়সী প্রশংসা করেনও তিনি।

সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ শান্তিরক্ষায় বাংলাদেশ সরকারের অব্যাহত প্রতিশ্রুতির কথা তুলে ধরেন। তিনি বাংলাদেশ থেকে আরো মেডিকেল, ইঞ্জিনিয়ারিং ও বিশেষ ফোর্স ও র‌্যাপিডলি ডেপ্লয়েবল ব্যাটালিয়ান মোতায়েনেরও প্রস্তাবনা উত্থাপন করেন। সামরিক উপদেষ্টা লেফটেন্যান্ট জেনারেল কার্লোস উমবার্তো লতে হাসিমুখেই এ প্রস্তাবনা গ্রহণ করেন।

সামরিক উপদেষ্টা বাংলাদেশের শান্তিরক্ষীদের পেশাদার ও মানবিক দৃষ্টিভঙ্গির প্রশংসা করেন। সেনাপ্রধান অগ্রসরমান দেশসমূহের দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য প্রশিক্ষণ সহযোগিতা দেওয়ার কথাও উপস্থাপন করেন। বিশ্ব শান্তিরক্ষায় বাংলাদেশের সহায়তার জন্য জাতিসংঘ ঋণী, বলেন সামরিক উপদেষ্টা।

আরও পড়ুন: পাঁচ দিনের সরকারি সফরে যুক্তরাষ্ট্র যাচ্ছেন সেনাপ্রধান

নানা প্রতিবন্ধকতা মোকাবেলা করে শান্তিরক্ষীদের দক্ষভাবে প্রশিক্ষিত করার জন্য বাংলাদেশের প্রচেষ্টার কথাও উল্লেখ করেন সেনাপ্রধান।

সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদের যুক্তরাষ্ট্র সফর নানা দিক থেকেই বিশেষ গুরুত্ব পাচ্ছে। জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশি সদস্য সংখ্যা বৃদ্ধি এবং নীতি নির্ধারণী পর্যায়ে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব বাড়াতে এ সফর গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে আগে থেকেই আশাবাদের কথা জানিয়েছিল আইএসপিআর।

সেই দিক থেকে সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদের এ সফর শতভাগ সফলতার মুখ দেখেছে। অনেক অর্জনের এ সফরে সামরিক উপদেষ্টা সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদকে জাতিসংঘ সদর দপ্তরে একজন কর্নেল পদমর্যাদার কর্মকর্তাকে শান্তিরক্ষা মিশনের ফোর্স জেনারেশন প্রধান হিসেবে নিয়োগপত্র হস্তান্তর করেন।

বলা হচ্ছে, বাংলাদেশের ৩১ বছরের শান্তিরক্ষা মিশনে অংশগ্রহণে প্রথম এই গুরুত্বপূর্ণ পদে বাংলাদেশকে নির্বাচন করেছে জাতিসংঘ। পাশাপাশি সামরিক উপদেষ্টা মিয়ানমার থেকে বের করে দেওয়া নাগরিকদের মানবিক সহায়তা দেওয়ার জন্য বাংলাদেশ সরকারের প্রশংসায় ছিলেন উচ্চকন্ঠ।

এর আগে গত শনিবার (৬ জুলাই) ৫ দিনের সরকারি সফরে যুক্তরাষ্ট্রের উদ্দেশ্যে বাংলাদেশ ত্যাগ করেন সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ।

কালের আলো/এএ/এমএএএমকে

Print Friendly, PDF & Email