ছাত্রলীগের হামলার নেতৃত্বে ৫ নেতা, নির্দয়ভাবে পেটানো হয়েছে শ্রাবণী শায়লাকে!

প্রকাশিতঃ 3:48 am | May 14, 2019

নিজস্ব প্রতিবেদক, কালের আলো :

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে নিজ সংগঠনের নেতা-নেত্রীদের ওপর হামলার ঘটনায় নেতৃত্বে ছিলেন নতুন কমিটির পদধারী ৫ নেতা। তাঁরা ছাত্রলীগের সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী’র ‘হাতিয়ার’ হিসেবে পরিচিত।

শুধু তাই নয়, হামলাকারীরা নারী নেত্রীদের গায়ে হাত দিয়ে শ্লীলতাহানী ও মারপিটের ঘটনা যেমন ঘটিয়েছে তেমনি নির্দয়ভাবে পিটিয়েছে বাংলাদেশ কুয়েত-মৈত্রী হলের সাধারণ সম্পাদক শ্রাবণী শায়লাকে। তাকে চেয়ার দিয়ে পেটাতে পেটাতে মধু থেকে কলা ভবন পর্যন্ত নিয়ে যাওয়া হয়েছে। এ সময় উপস্থিত পদধারী অন্য নেতারাও উল্লাস প্রকাশ করেছেন।

আরো পড়ুন: ‘ব্যর্থ’ শোভন-রাব্বানী, পদবঞ্চিত নারী নেত্রীদের ওপর ‘মধ্যযুগীয়’ হামলার নেপথ্যে কী?

সোমবার (১৩ মে) রাতে কালের আলো’র সঙ্গে আলাপকালে এসব অভিযোগ করেন হামলার শিকার ছাত্রলীগের সাবেক নেত্রীরা।

ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সদস্য জেরিন দিয়া কালের আলোকে বলেন, আমরা সবেমাত্র সংবাদ সম্মেলন শুরু করবো এমন সময়েই পরিকল্পিতভাবে নতুন কমিটির সহ-সভাপতি সাদিক খানের নেতৃত্বে আমাদের ওপর হামলা চালানো হয়। নতুন কমিটির পদপ্রাপ্ত নেতারা বিএম লিপি আক্তার, তিলোত্তমা শিকদার, শ্রাবণী শায়লা ও খাদিজাতুল কুবরার গায়ে হাত দেয়।

আরো পড়ুন: শেখ হাসিনার সাক্ষাত চান আহত ছাত্রলীগ নেতা-নেত্রীরা

আমরা এ ঘটনার প্রতিবাদ শুরু করলে তাঁরা প্রথমে প্লাস্টিকের চেয়ার ছুঁড়ে মারে। পরে লোহার চেয়ার দিয়ে শ্রাবণী শায়লাকে পেটাতে পেটাতে মধু থেকে কলা ভবন পর্যন্ত নিয়ে যায়।

গণমাধ্যমের কাছে হামলার নেতৃত্বে কারা ছিলেন সেইসব নেতাদের নাম প্রকাশ করেন শামসুন নাহার হল শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জিয়াসমিন শান্তা। তিনি জানান, নতুন কমিটির সহ-সভাপতি সাদিক খান, অর্থ সম্পাদক রাকিব হোসেন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শাকিল ভূঁইয়া, সহ-সভাপতি কামাল খান ও উপক্রীড়া সম্পাদক বায়জিদ কোতোয়াল এ হামলার নেতৃত্ব দিয়েছেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) রোকেয়া হল শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি লিপি আক্তার কালের আলোকে বলেন, নতুন কমিটি পুরোপুরি বিতর্কিত। আমরা এ কমিটি ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করেছি। এ কমিটিতে যোগ্যদের অমূল্যায়ন করা হয়নি।

অযোগ্যদের বড় দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। আবার পুরোপুরি যোগ্যতা রয়েছে, দলীয় রাজনীতিতে নিবেদিতপ্রাণ এমন নেতাদেরও স্থান দেওয়া হয়নি কমিটিতে।

নিজের রাজনৈতিক ব্যাকগ্রাউন্ডের কথা তুলে ধরে লিপি আরো বলেন, আমি রোকেয়া হলের প্রথম সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলাম। এরপর এ হলের সভাপতির দায়িত্বও পালন করি।

আমি ডাকসুর কমনরুম ও ক্যাফেটারিয়া বিষয়ক সম্পাদক। অথচ আমাকে দেওয়া হয়েছে উপসম্পাদকের পদ। আমার মতো আরো অনেকেই এভাবে পদের ক্ষেত্রে নিগৃহীত হয়েছেন।

হামলাকারীদের নাম জানিয়ে লিপি কালের আলোকে আরো বলেন, শোভন-রাব্বানীকে ‘তুষ্ট’ করতেই নতুন কমিটির সাদিক খান, রাকিব, ফাহিম, আল ইমরান, জহুরুল হক হলের সোহানরা হামলা চালিয়েছেন।

আরো পড়ুন: হামলায় আহতদের পাশে ঢাবি ছাত্রলীগ সভাপতি সঞ্জিত, বিচার চান হামলাকারীদের

আন্দোলনকারী ও হামলার শিকার নেতারা কালের আলোকে বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাদের অভিভাবক। আমরা নতুন কমিটির দাবি জানাই। আমরা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি নেত্রী তদন্ত করেই এ কমিটির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন। এবং হামলাকারীদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।

আরো পড়ুন: বিবাহিত সোহানী তিথি ও আঞ্জুমান অনু কীভাবে ছাত্রলীগের কমিটিতে?

ছাত্রলীগের রাজনীতিতে পরিচিত মুখ সুফিয়া কামাল হল শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও ডাকসুর কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য তিলোত্তমা শিকদার। তিনি ছাত্রলীগের সোহাগ-জাকিরের কমিটিতে উপ-সম্পাদক ছিলেন। নতুন কমিটিতেই তাকে একই পদে রাখা হয়েছে।

এ নিয়ে চরম ক্ষোভ প্রকাশ করে তাঁর অভিযোগ- ‘অযোগ্যদের কমিটিতে স্থান দেওয়া হয়েছে। সিনিয়রদের অনেকেই উপেক্ষিত হয়েছেন। আবার অনেক সিনিয়রকে পদের নামে অবমূল্যায়ন করা হয়েছে। দীর্ঘদিন যাবত আমরা ছাত্রলীগের রাজনীতিতে যুক্ত। অথচ আমাদের এভাবে অবজ্ঞা করা হয়েছে। হামলা ও মারপিটের শিকার হতে হয়েছে।’

আরো পড়ুন: শোভন-রাব্বানীর ‘গোমর ফাঁস’করলেন ছাত্রলীগ নেত্রী জেরিন দিয়া

শোভন-রাব্বানীর ৩০১ সদস্যের সদ্য ঘোষিত কমিটিতেও উপ-সম্পাদক পদ পাওয়া বাংলাদেশ কুয়েত-মৈত্রী হলের সভাপতি ফরিদা পারভীন বলেন, ফিল্মি স্টাইলে আমাদের ওপর হামলা করে সংবাদ সম্মেলন বানচাল করা হয়েছে। আমরা মঙ্গলবার (১৪ মে) আবার সংবাদ সম্মেলন করবো।’

অবমূল্যায়নের শিকার উপেক্ষার শিকার এসব নারী নেত্রীদের হামলার বিষয়ে ছাত্রলীগ সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী’র সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাদের পাওয়া যায়নি।

কালের আলো/এমএইচএ/এএ

Print Friendly, PDF & Email